ঃ তুমি হাত বাড়ালেই আকাশ ছুঁতো পারো! কিন্তু আমি
জানি, তুমি ছুঁয়ো দেখোনি। তোমার কল্পনা ছাপিয়ে
যায় জীবনের সব অস্পূর্ণতাকে। আর তোমার আকাশ ছোঁয়ার
সাহস আর ধ্রুপদী কল্পনা আমাকে ছুঁয়ে যায়।

ঃ তুমি আছো বলেই আমার কল্পনার আকাশ সীমাহীন
দিগন্ত ছাড়িয়ে আরো দূর, বহুদূর পর্যন্ত বিস্তৃত। তোমার
ভালোবাসা আমার কল্পনার রঙ, তোমার সান্নিধ্য
আমাকে সাহসী করে তোলে।

ঃ তাই বলে তোমার সাহসকে সব সময় প্রশয় দেয়া যায় না।

ঃ কেনো?

ঃ প্রায়ই তোমার ঐ সাহস দুঃসাহসে পরিণত হয়।
আমার উপর ঝড় বয়ে যায় তখন।

ঃ হা-হা-হা। হাসালে। মাঝেমাঝে আমার মনে
হয় তুমি শান্ত সৈকত, আর আমি উত্তাল
সমুদ্র। তোমার নিবিড় সান্নিধ্যে আমি ঢেউ হয়ে
যাই। আছড়ে পড়ি তোমার ওপর।

ঃ আবারো কথায় মায়াজাল বুনছো!

ঃ মানে?

ঃ মানে খুব সহজ। সমুদ্রের ঢেউ নয়, জলোচ্ছ্বাস হয়ে
তুমি আমাকে ভাসিয়ে নিয়ে যাও। থামাতে চায়না
যেন তোমার আগ্রাসন। নয়?

ঃ অভিযোগ করছো? আমার আগ্রাসন কি তোমাকে
আপ্লূত করেনা কখনো? সত্যি করে বলো তো?

ঃ তোমাকে তা বলা যাবে না। তবে মিনতি করছি,
সামলে রাখো তোমার আবেগের উনুন। নইলে
হয়তো একদিন পুড়ে খাঁক হয়ে যাবো আমি।

ঃ তোমাকে পুড়িয়ে সেদিন বলে দেবো-কেন
নিখাঁদ বিরহে মরে যায় নদী। পাহাড়ের
একাকীত্ব কেন শিল্পীত সুন্দর। দমকায় হাওয়ায়
কেন কাব্যময় হয়ে ওঠে ঝাঁঝালো দুপুর।
হাতছানি দিয়ে ডাকে কেন ধূসর দিগন্ত।

ঃ আগ্রাসী পুরুষ যখন কথার মায়াজাল বুনে, তখন
খরস্রোতা নদী কী করে সামলাবে বলো
চলমান জলধারা? আমাকে তুমি এভাবেই টেনে
নিয়ে যাও ভালোবাসার সম্মোহনে।

ঃ ভালোবাসার সম্মোহনের অপর নাম ভালোবাসার সমর্পণ।
এখানে ‘ভালোবাসা’ দায় হয়ে যায়।

ঃ ভালোবাসার দায় বলো কিংবা অসহায় সমর্পণ বলো
আমার কাছে এর গুরুত্ব কম নয়। তোমার রাগ
কিংবা মায়া, আবেগ কিংবা অভিযোগ, হাসি
কিংবা কান্না-যতরকম প্রকাশ তোমার, সবটুকুই
আমার কাছে একেক রকম ভালোবাসা। এই
ভালোবাসা আমাকে দিয়েছে কল্পনার অসীম শক্তি।
তাই, আমি আকাশ ছোঁয়ার সাহস রাখি।