আমার জন্মান্ধ চোখে মণি হবে
বলে পুড়িয়ে যাচ্ছো ঢের, যখন-তখন। ছাইভষ্ম
হয়ে উড়ে যেতে যেতে আমি গেয়ে যাই
আত্মশুদ্ধির গান। তবু প্রেম-অপ্রেমের আলো-আঁধারিতে
হয় দ্বন্দ্বের খুনসুটি, বিশ্বাসের আরশিতে মিহিন ভাঙন।

আমাকে ছুঁয়ে পবিত্র করে দেবে বলে
আঘাতে আঘাতে চূর্ণ করছো বারবার? বেদনায় নীল
হয়ে খুঁজি স্বপ্নের ফসিল, যেন ঝাঁঝালো গদ্যে
অহর্নিহিশ খোঁজা অন্তমিল! তোমাকে নিয়ে আমি
যতই হই না কাতর, তুমি অনাবিল অনুরাগে
পাষাণ পাথর! বিরহের কবিতায় ককিয়ে ওঠে বুকের পাঁজর!