আকাশমুখি খোলা চোখ, অন্তর্দৃষ্টিতে দ্যুতিময়
তোমার মুখ। অযাচিত বিরহে বসন্ত পুড়ে গেলে আমার
দীর্ঘশ্বাস সমুদ্র জলে তোলে ঢেউ, শুধু তুমি
জানো, জানে না আর কেউ।

আমার না বলা কথা পেখম ছড়িয়ে হয়
অরণ্যের নির্জনতা, অভিমান ঝরাপাতা। কথা রঙে
আবেগ, জমে থাকা মেঘ, বৃষ্টি হতে উন্মুখ। বাউল খেঁজে না
সুখ, বৈভব কিবা বিত্ত। শিল্পের চেয়ে শিল্পময় বিলাসী চিত্ত!

অঝোর বৃষ্টি যখন নামে, কবিতার খামে
কে যেন কীসের পিদিম জ্বালায়, বর্ণিল শব্দ মালায়,
তোমাকে পাই সমর্পণের দামে। তোমার গন্তব্যে
আমি সোজা পথে, দৃষ্টি নেই ডানে বা বামে।

হিসাব নেই লোকসান কী, হলো কি লভ্য। ক্রুশবিদ্ধ
হয়ে পড়ে থাক ভবিতব্য। হারাতে হারাতে মুখ থুবড়ে পড়ে
আর যখন পারিনা দাঁড়াতে, তখনও তোমার দিকে হাত বাড়াই।
কালস্রোতে আমি ভাসমান খরকূটো সময়ের বাঁকে উঠে
দাঁড়াই, রোমান্টিক দ্রোহে নিয়তির ছায়া তাড়াই।