সকাল | আকাশে জ্বলে সম্মিলিত রৌদ্রের পুণ্যাহ |
অন্ধকার থেকে এসো, ফিরে এসো, আমার কবিতা ;
সংহত তরঙ্গে তুমি ভুলে যাও রাত্রির প্রদাহ
অনাবৃত অন্তরালে এসো দৃশ্যপুঞ্জপরিবৃতা |

জানি, তুমি সঙ্কুচিত | অন্ধকার আশ্রয় তোমার |
প্রকাশ্য জগতে চক্ষ দগ্ধ হয় তীব্র দৃশ্যপটে,
কিন্তু তাই শ্রেয়তর ; কতক্ষণ বিদীর্ণ দুয়ার
নিঃসঙ্গ পবিত্র থাকে দৃপ্তচক্ষু সূর্যের নিকটে |

আপাতত চক্ষু, গ্রীবা, প্রণোদিত মুখ বক্ষদেশ
তুলে ধরো অনিবার্য বাতায়ন থেকে বহুদূরে,
দেখবে আকাঙ্ক্ষাগুলি আমাদের পায়ে-পায়ে ঘুরে
ক্রমশ উজ্জ্বল তীক্ষ্ণ, তীব্রতম, সহজ, অশেষ |
দেখবে কেমন করে আলোকিত তুমি, আমি, আর
আমাদের মধ্যবর্তী স্বেদ রক্তে মিলিত সংসার |

কিন্তু জানি, সাধ্যাতীত তোমার প্রকাশ্য আবির্ভাব |
তুমি স্বেচ্ছা-ভ্রাম্যমাণ বোধাতীত তিমিরবিলাসী,
আমাদের চতুর্দিকে রক্তস্রোত বদলাবে স্বভাব
অপরিবর্তনযোগ্য তুমি স্তব্ধ, আলোকবিনাশী |
ইতিমধ্যে আমি হব মৃত্যুহীন পতঙ্গের দাহ,
আবর্তিত বস্তুপুঞ্জে ক্ষমাহীন সূর্যের প্রবাহ |