‘ চলো ঘুমোতে যাই, প্রিয় আমার,
ওঠা যাবে আবার একশো বছর পরে।…’
না,
আমি বেইমান নই,
এ শতাব্দী আমার বিভীষিকা নয়।
ছন্নছাড়া আমার শতাব্দী
লজ্জায় আরক্তিম
দৃপ্ত আমার এই শতাব্দী
মহামহিমান্বিত
রথী।

বড় বেশি আগে জন্মেছি ব’লে কখনও বিলাপ করিনি,
আমি বিংশ শতাব্দীর মানুষ।
আমার গর্ব
আমি আছি।
আমার দেশের মানুষের মাঝখানে
নতুন পৃথিবীর মুখ চেয়ে আমি লড়ছি
আবার কী চাই…’

‘একশো বছর পরে, প্রিয় আমার…
‘না, বেশি দেরি নেই
সব কিছু সত্ত্বেও
আমার শতাব্দী প্রতি মুহূর্তে মরে গিয়ে
আবার নতুন জন্ম নিচ্ছে
আমার শতাব্দীর শেষের দিনগুলো বড় সুন্দর হবে
সূর্যলোকে ঠিকরে পড়বে আমার শতাব্দী, আমার প্রিয়,
ঠিক তোমার চোখের মত।’