কাজল চোখের মেয়ে

লিখেছেন - সাদাত হোসাইন

এই যে এমন করে ফিরিয়ে দাও, আমি চলে গেলে কে লিখবে কবিতা? যদি বিদ্বোহ করে বসে চোখ, কাজল না বসে আর চোখে? যদি শ্্ান হয় ঠোট, কবিতার শোকে! যদি নীল শাড়ি রঙ ভূলে যায়, উড়ে যায় সুগন্ধি চুল, যদি মন হয় বরফের নদী, মৃত্যুর বিষাদে ব্যাকুল। আমি চলে গেলে, জোছনায় কে হবে ভুল? কে হবে ছায়ার মতো লীন, তোমাতে আকুল! এই যে ফিরে যাই অবহেলা বুকে, ফিরে চাও? ডেকে বলো, থাকো? তুমি ছাড়া কিছু নেই, আরতো কোথাও! কবিতার খাতা যদি ফাঁকা থাকে, ফাকা থাকে মন, আমি ছাড়া তুমি, তোমার কাজল চোখ, বাঁচে কতক্ষণ? এবার ফিরাও তবে, আমাকে হে নারী, আমাতেই বেঁচে আছো তুমি, আমাতেই বাড়ী । তবে, আবার কবিতা হোক, বুকে বুকে জাণ্তক আবার, একজোড়া মায়াবতী নদী, তোমার কাজল চোখ । এমন জলের রাতে নদী হই যদি, যদি- তোমাকেই জমা রাখি বুক অবধি। আধারের রঙ ছুঁয়ে তুমিও খানিক, আমায় জমিয়ে রেখো বুকের বাঁ দিক! কুড়িয়ে নিয়েছি সব, জমা ছিলো যত পিছুটান পিছে ফেলে সীমানা ছাড়াই, তবু যেতে যেতে কেন থমকে দীড়াই! উড়িয়ে দিয়েছি ঘুড়ি সুতোটুকু কেটে পুড়িয়ে দিয়েছি চিঠি জমা বুক পকেটে, এখন পথিক হয়ে পথে পা বাড়াই, তবু যেতে যেতে কেন থমকে দাড়াই? আয়নায় জেগেছিলো কাজল দু চোখ, লেগেছিলো লাল টিপ, স্মৃতির সূচক, তার সব ভেঙে কীচ দু পায়ে মাড়াই, তবু যেতে যেতে কেন থমকে দীড়াই?